দুটি কবিতা: চমন আলম

single-news-image
♠♠♠

।। ও কে? ।।


ও কেউ না

ও শুধু আমার আকাশে সাতরঙা রংধনু আঁকা তুলিটা,

কখনও উদাসী দুপুরে একেলা শূন্যে চেয়ে থাকাটা।

ও কে?

ও কেউ না

আমার যত্নে লুকিয়ে রাখা না বলা কথার ফুলঝুড়িটা,

আর বুকের গভীরে ছুঁয়ে দেখা চিনচিনে নীল ব্যথাটা

ও কে?

ও কেউ না

ও আমার  হৃদ সাগরে ছোটো ছোটো ঢেউয়ে ভেসে থাকাটা,

কখনও মধ্যরাতে অশ্রু স্রোতে ভিজে যাওয়া বালিশটা।

ও কে?

ও কেউ না

ও শুধূ আমার মলিন ঘরে প্রদীপ জ্বলা সলতেটা.

আমায় মদিরতায় মাখিয়ে রাখা ভালোবাসার নির্যাসটা।

ও কেউ না-

ও আমার কেউ না, কেউ না-

ও আমার জন্ম জন্মান্তরের চাওয়া না পাওয়ার দোলনাটা,

আর শুধুই ও আমার লেখা এই ছোট্ট কবিতার খাতাটা।


♣♣♣
।। কী নামে ডাকি তোমায়…।।
সম্পর্ক না-ই বা থাকলো,

সম্বোধনের অধিকারটুকু না হয় থাক।

চলার পথে ছুঁয়ে যাওয়া নুড়ি পাথর

অনুভবে এখনও সঞ্জীবিত।

হৃদয়ে সুদূঢ় সংযোগ, তবুও

প্রত্যাশাহীন শূন্যে চেয়ে থাকা

সবকিছু দেখি, শুধু আমাকে দেখি না।

আমি শুধূ লুকিয়ে আঁধার ঢাকি

চিত্তের দাবানলে।

আলো আঁধারের ভেদ আর বুঝিনা,

আলোতে যতটা দেখি-

আঁধারে তার চেয়ে বেশি দেখি তোমাকে।

তাই হয়তো নিস্তব্ধতার মাঝেই

সুর খূঁজে পাই।

অসীমের মধ্যে সীমার সন্ধান মিলেছিল,

তাই দুচোখে মেখে রেখেছি

সেই নক্ষত্র।

রেললাইনের মতো সমান্তরাল জীবন,

তবুও তো তারা পাশাপাশি নিরন্তর।

না-ই বা হলো দেখা কোনো বিস্ময়-

তবুও তো বিভোর রেখেছে মন।

চাওয়া পাওয়ার উর্ধ্বে হয়তো কিছু আছে,

তবে বলো তো কী নামে ডাকি তোমায়?


 যুক্তরাষ্ট্রপ্রবাসী কবি চমন আলম