কোভিড-১৯ আপডেট

single-news-image

সৌজন্য: Shaikat Rushdee (All Bangladeshi Canadian, ABC)

কোভিড-১৯ মহামারী – ২৭ মেঃ বিশ্বে আক্রান্ত ৫৭ লাখ ৮৮ হাজার, প্রাণহানি ৩ লাখ ৫৭ হাজার (৬.১৭%) ও নিরাময় ২৪ লাখ ৯৭ হাজার (৪৩.১৫%); আক্রান্ত, মৃত্যু ও নিরাময়ে শীর্ষে যুক্তরাষ্ট্র

সৈকত রুশদীঃ করোনা ভাইরাস মহামারীতে বিশ্ব জুড়ে অব্যাহত মানবিক বিপর্যয়ের মধ্যে মানুষের মৃত্যুর সংখ্যা আরও বেড়েছে আজ বুধবার (২৭ মে ২০২০) ।

করোনায় মোট আক্রান্ত, প্রাণহানি ও নিরাময়ে বিশ্বে শীর্ষস্থানে যুক্তরাষ্ট্র। একদিনে আক্রান্তের দিক দিয়ে যুক্তরাষ্ট্র আজ দ্বিতীয় স্থানে।

বিশ্বে একদিনে আক্রান্তের সংখ্যায় ব্রাজিল আজ শীর্ষে। মোট আক্রান্ত এবং একদিনে প্রাণহানির সংখ্যায় ব্রাজিল আজ দ্বিতীয় স্থানে। নিরাময়ে ব্রাজিল তৃতীয়। আর মোট প্রাণহানিতে বিশ্বে ষষ্ঠ দক্ষিণ আমেরিকার সবচেয়ে জনবহুল এই দেশটি।

বিশ্বে একদিনে ও মোট আক্রান্তের সংখ্যায় রাশিয়া তৃতীয় স্থানে হলেও মোট প্রাণহানির সংখ্যা তুলনামূলকভাবে বেশ কম। বিশ্বে ১৮ তম স্থানে। তবে একদিনে প্রাণহানির সংখ্যায় রাশিয়া সপ্তম স্থানে আজ:

• বিশ্বে করোনায় মোট আক্রান্ত ৫৭ লাখ ৮৮ হাজার ৭৮২ জন আজ, আগের দিনের চেয়ে ১,০৬,৪৭৫ জন বেশি;

• বিশ্বে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মানুষের প্রাণহানি মোট ৩ লাখ ৫৭ হাজার ৪২৫ জন (মোট আক্রান্তের ৬.১৭%) আজ;

• বিশ্বে আক্রান্তদের মধ্যে মোট নিরাময় ২৪ লাখ ৯৭ হাজার ৫৯৩ জন (৪৩.১৫%);

• বিশ্বে আক্রান্তের দিক দিয়ে দেশগুলোর মধ্যে শীর্ষে থাকা যুক্তরাষ্ট্রে এই সংখ্যা ১৭ লাখ ৪৫ হাজার ৮০৩ জন। বিশ্বে মোট আক্রান্তের তিনভাগের একভাগ প্রায়, ৩০.১৮%। দ্বিতীয় স্থানে ব্রাজিল;

• বিশ্বে মোট প্রাণহানিতে দেশগুলোর মধ্যে শীর্ষে যুক্তরাষ্ট্র, মোট ১ লাখ ২ হাজার ১০৭ জন; দ্বিতীয় স্থানে ব্রিটেন;

• করোনায় আক্রান্ত হয়ে বিশ্বে প্রাণ হারানো মানুষের সংখ্যা আজ ৫,২৮৩ জন, যা আগের দিনের চেয়ে ১,২৩৫ জন বেশি;

• বিশ্বে ১০ হাজারের বেশি মানুষ করোনা আক্রান্ত এমন দেশগুলোর মধ্যে মৃত্যুর হার সর্বোচ্চ বেলজিয়ামে ১৬.২৬% (৯,৩৬৪ জন); দ্বিতীয় স্থানে ফ্রান্স ১৫.৬৩%;

• একদিনে এক দেশে প্রাণহানি সর্বোচ্চ যুক্তরাষ্ট্রে আজ ১,৫৩৫ জন, আগের দিনের চেয়ে ৫০৮ জন বেশি; দ্বিতীয় স্থানে ব্রাজিল;

• একদিনে এক দেশে নতুন আক্রান্ত মানুষ আজ সর্বোচ্চ ব্রাজিলে, ২২ হাজার ৩০১ জন; দ্বিতীয় স্থানে যুক্তরাষ্ট্র, তৃতীয় রাশিয়া ও চতুর্থ ভারত;

• করোনায় মোট প্রাণহানিতে শীর্ষ পাঁচ দেশ ছাড়া প্রাণহানির সংখ্যা বেড়েই চলেছে ব্রাজিল, মেক্সিকো ও পেরুতে, আর আক্রান্ত বেড়ে চলেছে ব্রাজিল, রাশিয়া, ভারত ও পেরুতে;

• বিশ্বে মোট নিরাময়ের দিক দিয়ে দেশগুলোর মধ্যেও শীর্ষে যুক্তরাষ্ট্র, ৪ লাখ ৯০ হাজার ১৩০ জন; দ্বিতীয় স্থানে স্পেন;

• বিশ্বে মোট প্রাণহানিতে যুক্তরাষ্ট্র ১ লাখ ২ হাজার, ইতালী ৩৩ হাজার, ব্রাজিল ২৫ হাজার ও মেক্সিকো ৮ হাজার জন ছাড়ালো আজ।

• প্রাণহানিতে আজ শীর্ষ ৫টি দেশ:

দেশ প্রাণহানি আজ
যুক্তরাষ্ট্র ১,৫৩৫
ব্রাজিল ১,১৪৮
যুক্তরাষ্ট্র ৫০১
মেক্সিকো ৪১২
পেরু ১৯৫

• মোট প্রাণহানিতে শীর্ষ ৫টি দেশ:

দেশ প্রাণহানি মোট প্রাণহানির হার
যুক্তরাষ্ট্র ১,০২,১০৭ ৫.৮৫%
ব্রিটেন ৩৭,৪৬০ ১৪.০২%
ইতালী ৩৩,০৭২ ১৪.৩১%
ফ্রান্স ২৮,৫৯৬ ১৫.৬৩%
স্পেন ২৭,১১৮ ৯.৫৫%

• আক্রান্তের সংখ্যায় শীর্ষ ৫টি দেশ:

– যুক্তরাষ্ট্র ১৭,৪৫,৮০৩ জন;
– ব্রাজিল ৪,১৪,৬৬১ জন;
– রাশিয়া ৩,৭০,৬৮০ জন;
– স্পেন ২,৮৩,৮৪৯ জন; ও
– ব্রিটেন ২,৬৭,২৪০ জন।

• বিশ্বে নিরাময়ের সংখ্যায় শীর্ষ ৫টি দেশ:

– যুক্তরাষ্ট্র ৪,৯০,১৩০ জন;
– স্পেন ১,৯৬,৯৫৮ জন;
– ব্রাজিল ১,৬৬,৬৪৭ জন;
– জার্মানী ১,৬২,৮০০ জন; ও
– ইতালী ১,৪৭,১০১ জন।

• বিশ্বে নিরাময়ের হারে শীর্ষ ৫টি দেশ:

– চীন ৯৪.৩২% (৭৮,২৮০ জন);
– সুইজারল্যান্ড ৯১.৯৫% (২৮,৩০০ জন);
– দক্ষিণ কোরিয়া ৯১.৩৯% (১০,২৯৫ জন);
– অস্ট্রিয়া ৯১.৭৮% (১৫,২২৮ জন); ও
– জার্মানী ৮৯.৫০% (১,৬২,৮০০ জন) ।

• কানাডায় করোনায় আজ আরও ১২৬ জন মানুষ প্রাণ হারিয়েছেন। প্রাণহানির সংখ্যা আজ মোট ৬,৭৬৫ জন (মোট আক্রান্তের ৭.৭৩%); আক্রান্ত নতুন ৮৭২ জন সহ মোট ৮৭ হাজার ৫১৯ জন এবং মোট নিরাময় ৪৬ হাজার ১৬৪ জন (৫২.৭০%); এবং

• বাংলাদেশে করোনায় আজ আরও ২২ জন মানুষ প্রাণ হারিয়েছেন। ফলে মোট প্রাণহানির সংখ্যা ৫৪৪ জন (মোট আক্রান্তের ১.৪২%); আক্রান্ত নতুন ১,৫৪১ জন সহ মোট ৩৮ হাজার ২৯২ জন এবং নিরাময় নতুন ৩৪৬ জন সহ মোট ৭,৯২৫ জন (আক্রান্তের ২০.৭০%) ।

• বাংলাদেশের প্রতিবেশী ভারতে আক্রান্ত ও মৃত্যুর সংখ্যা বেশ দ্রুত হারে বাড়ছে। ভারত বিশ্বে একদিনে আক্রান্ত (৭,২৯৩ জন) এবং একদিনে মৃত্যুর (১৯০ জন) দিক দিয়ে আজ চতুর্থ স্থানে। মোট আক্রান্তের (১,৫৮,০৮৬ জন) সংখ্যায় ভারত দশম এবং মোট মৃত্যুর (৪,৫৩৪ জন) সংখ্যায় ১৪ শ স্থানে।

সতর্কতা: করোনা থেকে বাঁচতে হলে

করোনা ভাইরাসে ষাটোর্ধ্ব বয়সের এবং আগে থেকে যেকোনো রোগে আক্রান্ত মানুষের মৃত্যু ঝুঁকি অত্যন্ত বেশি।

বেশ কিছু পরীক্ষা নিরীক্ষা চালানো হলেও এখন পর্যন্ত এই ভাইরাসের কোনো প্রতিষেধক (Vaccine) নিশ্চিত করা যায়নি। আর এই ভাইরাস থেকে মুক্তিলাভের সুনির্দিষ্ট ঔষধ এখনও উদ্ভাবন হয়নি।

ছোঁয়াচে করোনা ভাইরাস থেকে মুক্ত থাকার প্রাথমিক প্রতিরোধ হলো নিজ বাসগৃহে থাকা এবং বাইরে গেলে মুখে মাস্ক পরা সহ সামাজিক ও শারীরিক দূরত্ব বজায় রাখা।

মানুষের স্পর্শ থেকে দূরে থাকুন, নিজ বাড়িতে থাকুন, বাইরে অথবা কোনো হাসপাতাল, স্বাস্থ্যসেবা, অফিস ও ব্যবসায় প্রতিষ্ঠানে মাস্ক পরুন।

অফিস, বাজার বা অন্য কোনো কাজে বাড়ির বাইরে যেতে হলে বাড়ি ফিরে জুতা বাইরে খুলে রাখুন, সোজা বাথরুমে গিয়ে সাবান ও পানি দিয়ে হাত ধোয়া সহ নিজেকে ও পোশাক এবং পরে বাইরে থেকে আনা পণ্য, তার মোড়ক ও থলে জীবাণু মুক্ত করুন। নিজে বাঁচুন, অন্যকে বাঁচতে সাহায্য করুন।

তথ্যসূত্র: https://www.worldometers.info/coronavirus/

টরন্টো
২৭ মে ২০২০