ডেঙ্গুতে নাকাল নগরবাসীকে জরিমানার হুঁশিয়ারি

single-news-image


এখনও কাটেনি ডেঙ্গু আতঙ্ক৷ ৬ আগস্ট পর্যন্ত সরকারি হিসেবে দেশে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা ২৯ হাজার ৯১২৷ মারা গেছে অন্তত ২৩ জন৷ এর মধ্য কড়া নাড়ছে কোরবানির ঈদ৷ আতঙ্কিত নগরবাসী৷ ব

ডেঙ্গুর চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় নগরবাসীর সচেতনতাকে গুরুত্ব দিচ্ছেরান ঢাকা দক্ষিণ ও উত্তর সিটির দুই মেয়র৷  এমনকি, নগরবাসীর কারণে এডিস মশার লার্ভা তৈরি হলে জরিমানা আদায় করারও হুঁশিয়ারি দিয়েছেন উত্তরের মেয়র আতিকুল ইসলাম৷

নাগরিক সচেতনতা

ডেঙ্গু মোকাবেলায় এডিস মশা নিয়ন্ত্রণে ঘর থেকে কাজ শুরুর ওপর গুরত্বারোপ করেছেন স্বয়ং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। লন্ডন সফররত প্রধানমন্ত্রী বিবিসি বাংলাকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে আরো জানিয়েছেন, কারও ঘরে এডিস মশার লার্ভা পাওয়া গেলে তাঁকে জরিমানার আওতায় আনা হবে৷

প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে কণ্ঠ মিলিয়ে একই কথা বললেন ঢাকা উত্তরের মেয়র আতিকুল ইসলাম৷ তিনি বলেন, নগরবাসী বুঝে গেছেন ‘‘এডিস মশার জন্ম কিন্তু ময়লা পানিতে না৷ এডিস মশার জন্ম হয় তিনদিনের বেশি জমে থাকা স্বচ্ছ পানিতে৷ এ বিষয়ে সবাইকে এগিয়ে আসতে হবে৷”

তিনি বলেন, প্রতিটি বাড়ি বাড়ি গিয়ে দেখা হচ্ছে কোথায় লার্ভা পাওয়া যাচ্ছে৷ ‘‘প্রথমে আমরা ওয়ার্নিং দিবো৷ লাল রঙের একটি স্টিকার লাগিয়ে দেবো৷ পরে গিয়ে আবার দেখবো৷ বাসা থেকে যদি লার্ভা মুক্ত না করে, তাহলে অবশ্যই আমরা ফাইনিং সিস্টেম (জরিমানা আদায়) করবো৷”

আতিকুল ইসলাম বলেন, জনগণ এগিয়ে এলেই এ চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা সহজ হবে৷ বৃহস্পতিবার থেকে নতুন ওষুধ ছিটানো হবে বলেও জানান মেয়ররা৷


নগর কর্তৃপক্ষের চ্যালেঞ্জ

এর মধ্য নগরজুড়ে বসতে শুরু করেছে পশুর হাট৷ পশুর হাট মানেই ময়লা আবর্জনা৷ কিন্তু হাট এলাকাকে পরিস্কার পরিচ্ছন্ন রাখতে বিশেষ টিম গঠন করা হয়েছে বলে জানিয়েছন ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের মেয়ের সাঈদ খোকন৷ পশুর হাট ডেঙ্গুর জন্য খুব একটা ঝুঁকিপূর্ণ নয় বলে জানিয়েছেন দক্ষিণের মেয়র৷ তিনি বলেন, ‘‘ডেঙ্গুর সঙ্গে এটার খুব বেশি একটা সম্পর্ক নেই৷ কারণ এখানে এডিস মশা খুব একটা হয় না৷” তারপরেও কন্টেইনারের পানি জমে যাতে এডিস বংশ বিস্তার করতে না পারে, সেদিকে লক্ষ্য রাখার কথা জানিয়েছেন সাঈদ খোকন৷

ঈদের ছুটিতে ঢাকা অনেকটাই ফাঁকা হয়ে আসে৷ বিপুল পরিমাণ কর্মজীবী মানুষ পরিবার পরিজনদের সঙ্গে ঈদ ছুটি কাটাতে বাড়ি যাবেন৷ ফাঁকা ঢাকাকেই চ্যালেঞ্জ মনে করছেন নগরপিতারা৷ সাঈদ খোকন বলেন, ‘‘বাসাগুলো বন্ধ থাকবে৷ যদি বৃষ্টিপাত হয়, পানি জমে থাকে, তাহলে আবার নতুন করে লার্ভা হবে৷‘‘

তিনি জানান, ঢাকা শহরের বাড়ি বাড়ি গিয়ে লার্ভা ধ্বংসের কাজটি চলমান আছে৷ কিন্তু এ কাজটা থমকে যেতে পারে, কারণ পরিচ্ছন্নতা কর্মীরা ঈদের ছুটিতে বাড়ি বাড়ি গিয়ে লার্ভা ধ্বংস করতে পারবে না৷ কারণ বন্ধ বাড়িতে গিয়ে লার্ভা ধ্বংসের সুযোগটা তাঁরা পাবেন না৷ ফলে নগরবাসী ঢাকা ছাড়ার সময় যদি প্রতিটি বাসায় একজনকে রেখে যায়, ‍পরিচ্ছন্নতা কর্মীরা যদি বাড়ির ভেতর ঢুকতে পারে, তাহলে কাজটি সহজ হবে বলে মনে করেন দক্ষিণের মেয়র৷

মেয়র বলেন, ছুটি থেকে ঢাকায় ফিরে শুরুতেই বন্ধ ঘর পরিষ্কার করে নেয়া হয়, তাহলে ঝুঁকি অনেকটা কেটে যাবে৷

ফাঁকা ঢাকাকেই চ্যালেঞ্জ মনে করছেন সাঈদ খোকন

সাঈদ খোকন জানান, এডিস মশার লার্ভা সাধারণত স্বচ্ছ পানিতে হয়৷ তাই কোরবানির বর্জ্য বড় ধরণের প্রভাব ফেলবে না৷ তবে ঈদের প্রথম দিনের সকল বর্জ্য ওই রাতের মধ্যেই পরিস্কার করে ফেলা হবে নিশ্চিত করেন দক্ষিণের মেয়র৷ দ্বিতীয় ও তৃতীয় দিনের বর্জ্য অপসারণ সর্বোচ্চ ২৪ ঘণ্টার মধ্যে শেষ করতে সব ধরনের প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে বলেও জানান তিনি৷

সরকারের প্রস্তুতি

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের পরিচালক (রোগ নিয়ন্ত্রণ) সানিয়া তাহমিনা ঝরা জানিয়েছেন, ঈদের ছুটিকে সামনে রেখে ঢাকা এবং ঢাকার বাইরে দু ধরণের প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে৷ তিনি জানান, ‘‘সারা বাংলাদেশের সকল হাসপাতালের চিকিৎসকদের এবং চিকিৎসা সেবায় জড়িতদের ছুটি বাতিল করা হয়েছে৷ এমনকি কমিউনিটি ক্লিনিকেও ছুটি বাতিল করা হয়েছে৷ শুধু ঈদের দিন তাঁরা অন কলে থাকবেন, বাকিসব দিন তাঁরা ডিউটিতে থাকবেন৷”

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণ কক্ষ ঈদের ছুটিতেও সার্বক্ষণিক খোলা রাখার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে৷ তিনি বলেন, ‘‘ঢাকার বাইরে চিকিৎসা সেবা পেতে যাতে অসুবিধে না হয়, সেজন্য দেশের প্রতিটি সদর, জেলা ও উপজেলা হাসপাতালে ডেঙ্গুর কিট কেনাকাটায় বিশেষ বরাদ্দ দেয়া হয়েছে৷”

ডেঙ্গু কিট সরবরাহকারি প্রতিষ্ঠানগুলো ঢাকার বাইরে জেলা পর্যায়ে এসব পণ্য পৌঁছে দিতে উদ্যোগ নিয়েছে বলেও জানান তিনি৷ ফলে আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসার জন্য এখন আর ঢাকামুখি হতে হবে না৷

চিকিৎসা সেবায় জড়িতদের ছুটি বাতিল করা হয়েছে: সানিয়া তাহমিনা

তিনি জানান, ঈদকে সামনে রেখে অনেকেই ঢাকা ছেড়ে বাড়ি যাবেন৷ ঘর ছেড়ে বাড়ি যাওয়ার আগে সব পানির পাত্র খালি করে তা উল্টে রাখার পরামর্শ দিয়েছেন সানিয়া তাহমিনা৷ এমন হাই কমোড ঢেকে রাখার পাশাপাশি লো-কমোড যেন ঢেকে রাখা হয় সেই পরামর্শ দিয়েছেন এই স্বাস্থ্যবিদ৷ ফ্রিজ এবং এসির পানির পরিস্কার করে রেখে যেতেও বলেছেন তিনি, যাতে ডেঙ্গু বংশ বিস্তার করতে না পারে৷

তবে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ডা. কনক কান্তি বড়ুয়া জানিয়েছেন সেপ্টেম্বের মধ্যেই ডেঙ্গুর প্রকোপটা কমে যাবে৷ তিনি বলেন, সাধারণত সেপ্টেম্বরের মাঝামাঝি বা শেষের দিকেই এই প্রকোপটা কমে যায়৷ কারণ হিসেবে তিনি জানান, ওইসময় বৃষ্টি কমে যায়, জলাবদ্ধতা কেটে যায়৷ ফলে এডিস মশা বংশ বিস্তার আর করতে পারে না।

স্বাস্থ্যকর্মীদের সুরক্ষা

ডেঙ্গু মোকাবিলায় যারা নিরলস কাজ করে যাচ্ছেন, তাঁরাও কিন্তু ঝুঁকির বাইরে নয়৷ এরমধ্যেই ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে চিকিৎসকের মৃত্যুও হয়েছে৷ ভবিষ্যতে স্বাস্থ্যসেবায় জড়িত কেউ যাতে ডেঙ্গুতে আক্রান্ত না হন সেজন্য ফুল হাতা কাপড় এবং জুতা-মোজা পড়ে কাজ করার নির্দেশনা দেয়া হয়েছে৷ ডয়চে ভেলে